সাকিব-তামিমকে ছাড়াই জিম্বাবুয়ে সিরিজ : নান্নু

খেলাধুলা

আগামী ২১ অক্টোবর শুরু হবে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টাইগারদের ওয়ানডে সিরিজ। আর তার আগে ১৫ই অক্টোবর থেকে ফিটনেস ও অনুশীলন করবে বাংলাদেশ দল।

বাংলাদেশ এশিয়া কাপ থেকেই দলের গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড় আঘাত ও ইনজুরি নিয়ে বেশ চিন্তায় আছে বিসিবি। ইতিমধ্যে নিশ্চিত টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবাল খেলবেন না এই সিরিজ। তাড়াছা মাশরাফি বিন মর্তুজা, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মতো সিনিয়র খেলোয়াড়ও ভাল অবস্থায় নেই, আছে ইঞ্জুরি শংকায়।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচে বাম আঙ্গুলের আঘাত পায় তামিম। পুরোপুরি পুনরুদ্ধারের জন্য পাঁচ থেকে ছয় সপ্তাহের প্রয়োজন।

অন্যদিকে সাকিবের আঙুল থেকে পুরোপুরি সুস্থ হওয়ার জন্য আট সপ্তাহ থেকে দুই মাস লাগবে। তাই জিম্বাবুয়ের সিরিজ শেষ হওয়ার পরে শুরু হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে সিরিজ খেলতে হবে কিনা তা নিয়ে সাকিব তা নিয়ে সংশয় থাকছেই।

কিন্তু মুশফিকুর রহিম ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও যদি না থাকেন জিম্বাবুয়ে সিরিজে তাহলে সব সিনিয়রদের হারাবে এই সিরিজে।

এ বিষয়ে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীন নান্নু বলেছেন,
“আমরা ১৫ অক্টোবর জিম্বাবুয়ের সিরিজের জন্য প্রশিক্ষণ ক্যাম্প শুরু করব। এখানে আমাদের ফিটনেস প্রশিক্ষক এবং ফিজিওও রয়েছে। এ বিষয়ে তারা নজর রাখবে।

আর এই কারণে দুই সপ্তাহের বিশ্রামে আছেন তারা জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) এর অংশও নিবেন না এই ক্রিকেটাররা। যদিও মুশফিকের মনে করেন সে সিরিজের আগে কমপক্ষে এক ম্যাচ খেলতে পারবে।

অন্যদিকে টেস্ট সিরিজে সাকিবের অনুপস্থিতিতে অধিনায়কত্বে কাকে দেখা যাবে, সেটা নিয়েও চিন্তা আছে নির্বাচিকদের।

এর আগে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ সাকিবের অনুপস্থিতিতে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে নেতৃত্ব দেন। কিন্তু জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে কে হবে অধিনায়ক এখনি জানাতে চায় না বোর্ড।

মিনহাজুল আবেদীন নান্নু আরো বলেন,

“তামিমের সম্পূর্ণরূপে সুস্থ হতে ৫-৬ সপ্তাহ লাগবে। এর অর্থ সে জিম্বাবুয়ের বিরুদ্ধে ক্রিকেটের কোনও ফরমেটে খেলতে পারবে না। এবং সাকিবেরো সিরিজ খেলতে পারার কোনও সম্ভাবনা নেই, তাই আমাদের দুটি শীর্ষ তারকা ছাড়া জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সিরিজ খেলতে হবে।”

প্রধান নির্বাচক অবশ্য বিশ্বাস করেন যে, তরুণ খেলোয়াড়দের জন্য এটা একটা সুযোগ নিজেদের প্রমান করার। এবং ব্যাক আপ যারা আছে ভাল করবে।

“আমাদের তরুণ ও ব্যাকআপে থাকা খেলোয়াড়রা যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী। যারা সব সময় ভাল পারফরম্যান্স করতে প্রস্তুত। সুতরাং, আমাদের খুব একটা সমস্যা হবে না তাদের অভাব পূরণ করতে।”

উল্লেখ্য, আগামী ২১ অক্টোবর থেকে শুরু হবে জিম্বাবুয়ে সিরিজ।