ব্যাটিং-বোলিংয়ে সামর্থের প্রমাণ দিতে মরিয়া আশররাফুল

খেলাধুলা

আবারও নিজেকে প্রমাণ করার সুযোগ এসেছে সদ্যই সবধরণের ক্রিকেট থেকে নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়া মোহাম্মদ আশরাফুলের। চলমান জাতীয় ক্রিকেট লীগ (এনসিএল) দিয়ে নিজের ব্যাটিং-বোলিংয়ে সামর্থের প্রমাণ দিতে মরিয়া আশররাফুল। আর সেই লক্ষ্য নিয়েই ঢাকা মেট্রোর হয়ে নিজের প্রথম ম্যাচেই বাজিমাত আশরাফুলের।

সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত এই ম্যাচে ব্যাট হাতে ৫৩ রানের একটি অনবদ্য ইনিংস খেলার পর এখন পর্যন্ত বল হাতে সিলেটের ২ উইকেট তুলে নিয়েছেন তিনি। ঢাকা মেট্রোর ৪২৬ রানের জবাবে খেলতে নামার পরই সিলেট শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন আশরাফুল।

দলটির ওপেনার খন্দকার সায়েম আলম রিজভিকে আরাফাত সানির হাতে ক্যাচ বানিয়ে ঢাকা মেট্রোর পক্ষে প্রথম ব্রেক থ্রু এনে দেন তিনি। পরবর্তীতে ৩৯ রানের মাথায় আরেক ওপেনার শাহনাজ আহমেদকেও সরাসরি বোল্ড করে আউট করেন এই সাবেক অধিনায়ক।

ফলে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত সিলেটের স্কোর দাঁড়িয়েছে ৩ উইকেটে ৪২ রান। ক্রিজে জাকির হাসান ৭ এবং অলোক কাপালি ২ রান নিয়ে অপরাজিত আছেন। আশরাফুল ছাড়াও আরেকটি উইকেট শিকার করেছেন স্পিনার আরফাত সানি। মাত্র ১ রান করা ইমতিয়াজ হোসেনকে শামসুর রহমানের হাতে ক্যাচ বানিয়ে ফিরিয়েছেন তিনি।

সিলেট ডিভিশনের পক্ষে সবথেকে সফল বোলার স্পিনার এনামুল হক জুনিয়র। ৫৩.৪ ওভার বোলিং করে ১৬৫ রান খরচায় একাই ৬ উইকেট শিকার করেন তিনি। এছাড়াও শাহনুর রহমান নিয়েছেন ৭৫ রানে ৩ উইকেট এবং ১টি উইকেট পেয়েছেন আবু জায়েদ রাহি।

ঢাকা মেট্রো একাদশঃ মার্শাল আইয়ুব (অধিনায়ক), মোহাম্মদ আশরাফুল, মেহরাব হোসেন জুনিয়র, শামসুর রহমান, আরাফাত সানি, সৈকত আলি, সাদমান ইসলাম, আসিফ হাসান, আবু হায়দার রনি, মোঃ শহিদুল, কাজি অনিক।

সিলেট একাদশঃ ইমতিয়াজ হোসেন তান্না (অধিনায়ক), জাকির হাসান, অলক কাপালি, শাহনাজ আহমেদ, খন্দকার সায়েম আলম রিজভি, এনামুল হক জুনিয়র, খন্দকার রাজিন সালেহ আলম, শাহনুর রহমান, আবু জায়েদ চৌধুরি রাহি, সৈয়দ খালেদ আহমেদ, এবাদত হোসেন।